শিক্ষা

ছাত্রছাত্রীদের স্বীকৃতিই আমার সেরা শিক্ষকের সম্মান: বললেন আল-আমীন মিশনের কর্ণধার নুরুল ইসলাম

  •  
  •  
  •  
  •  

বি.বি নিউজ ওয়েবডেস্ক : তাঁর ছাত্রছাত্রীদের স্বীকৃতিতেই, দেশের সেরা ৩০ জন শিক্ষকের একজন হওয়ার সম্মান তিনি অর্জন করতে পেরেছেন। শনিবার সন্ধ্যায় হায়দ্রাবাদে উদ্ভাবন ও উদ্যোগে উৎসাহ দানকারী সংস্থা iB-HUBS থেকে দেশের অন্যতম সেরা শিক্ষকের সম্মান পাওয়ার পর এমনটাই জানালেন আল আমীন মিশনের কর্ণধার তথা মিশনের সাধারণ সম্পাদক এম নুরুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ” এই সম্মান শুধু আমার ব্যক্তিগত সম্মান নয়, আল-আমীন মিশনের সকল ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকা সহ মিশনের সহকর্মীদের সকলের জন্য এই সম্মান, এই স্বীকৃতি। আমি আল- আমীন মিশনের প্রত্যেকের কাছেই এর জন্য কৃতজ্ঞ”। iB-Hub এর এই মহান উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, ” এই সম্মান গোটা শিক্ষক সমাজের জন্য এক বিরাট সম্মান। ছাত্ররা যে এখনো শিক্ষকদের মনে রেখেছে , ছাত্র ও শিক্ষকদের মধ্যে যে সুমধুর সম্পর্ক বর্তমান, এই স্বীকৃতি তারই প্রমাণ।” এই সম্মান তাঁর ও আল- আমীন মিশনের কাছে কতটা তাৎপর্য বহন করছে এই প্রশ্ন করা হলে নুরুল ইসলাম সাহেব বলেন, ” এই স্বীকৃতির ফলে আল-আমীন মিশনের ভাবনা ও কাজ যে দেশ ও দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিশ্বের আপামর শিক্ষাপ্রেমী মানুষের কাছে পৌঁছে গেল, এটাই আমার ও আমাদের আনন্দের ও গর্বের বিষয়”।

শনিবার হায়দ্রাবাদে আল আমীন মিশনের প্রাণপুরুষ, মিশনের প্রতিষ্ঠাতা তথা সাধারণ সম্পাদক এম নুরুল ইসলামের হাতে যখন উঠলো দেশের সেরা শিক্ষকের সম্মান, তখন এই মহান ব্যক্তির সমাজের পিছিয়ে থাকা ছেলেমেয়েদের সামনের সারিতে এনে, মাথা উঁচু করে দাঁড় করানোর নিরলস সংগ্রাম, আরো বড় মঞ্চে স্বীকৃতি পেল। বাংলাকে তো আগেই জয় করেছেন, এবার নিজামের শহর হায়দ্রাবাদে গিয়ে তিনি জয় করলেন গোটা দেশ।

এদিন যখন সম্মানের জন্য তাঁর নাম ঘোষণা করা হয় অনুষ্ঠানে উপস্থিত মিশনের আধিকারিক ও অন্যান্য দর্শকদের করতালি ও উচ্ছ্বাসে ভরে ওঠে অনুষ্ঠানস্থল। নুরুল ইসলামের নাম ঘোষণার পরই পর্দায় ফুটে ওঠে অর্থনৈতিক দিক থেকে পিছিয়ে থাকা পরিবারের ছেলেমেয়েদের শিক্ষার মাধ্যমে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করতে তাঁর অঙ্গীকার, দশম শ্রেণীতে পড়তে পড়তেই মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা, ১৯৮৬ সালে মাত্র ৭ জন গরীব ঘরের ছাত্র ছাত্রীদের নিয়ে শুরু হওয়া আল-আমীন মিশনের সফর। এরপর মঞ্চে তাঁকে ডেকে নেওয়ার সময় আরেকপ্রস্থ উচ্ছ্বাস ও কুর্নিশ। উত্তরীয়, মেডেল পরিয়ে, স্মারক ও শংসাপত্র দিয়ে আই বি হাবের পক্ষ থেকে সম্মান জানানো হল বাংলার এই মহান সন্তানকে।
তথ্যসূত্র, টাইমস বাংলা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *