Bengal Breaking News
স্বাস্থ্য

‘আপনাকে আমরা অন্ধের মতো বিশ্বাস করি’, মমতার আশ্বাসে শেষ পর্যন্ত উঠছে কর্মবিরতি

  • 1.6K
  •  
  •  
  •  
    1.6K
    Shares

বিবি নিউজ ওয়েবডেস্কঃ আন্দোলন, প্রস্তাব, পাল্টা প্রস্তাব, হুঁশিয়ারি থেকে লাইভ কভারেজ। অবশেষে নবান্নে সোমবার জুনিয়র চিকিৎসক–মুখ্যমন্ত্রী বৈঠকে বরফ গলল। মুখ্যমন্ত্রীর উপস্থিতিতে রাজ্যের প্রধান সচিবালয়ে আন্দোলনরত জুনিয়র ডাক্তারদের সঙ্গে বৈঠকে বসে রাজ্য প্রশাসন। সেই বৈঠকের পরই কর্মবিরতি প্রত্যাহার করে নেন এনআরএসের জুনিয়র ডাক্তাররা। মুখ্যমন্ত্রীর বার্তা, ডাক্তার নিগ্রহের ঘটনা ঘটলেই সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেবে পুলিশ।

বিকেল ৪টের সময় বৈঠক শুরু হতেই সবাই বসার জায়গা পেয়েছে কিনা জিজ্ঞাসা করেন মুখ্যমন্ত্রী। জুনিয়র চিকিৎসকদের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়, তাঁদের ভয়ের সঙ্গে কাজ করতে হচ্ছে। অনিচ্ছা সত্ত্বেও বাধ্য হয়েই আন্দোলনে যেতে হয়েছে। দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিন। যাতে একটা বার্তা যায়। আর সম্ভব হলে পরিবহ মুখার্জিকে দেখতে যান।

সব অভাব–অভিযোগ–দাবি মন দিয়ে শোনেন মুখ্যমন্ত্রী। তারপর বলেন, ‘তোমরা আমার ছোট ছোট ছেলে–মেয়ে। জুনিয়র চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে কোনও মামলা দায়ের করা হয়নি। কেন অভিযোগ দায়ের করতে যাবো? আর এই ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা যাতে না ঘটে তার জন্য ইমার্জেন্সি বিভাগের সামনে কোলাপসিবল গেট করে দিতে চাই। যাতে দু’জনের বেশি প্রবেশ করতে না পারে।’

এছাড়া একাধিক সিদ্ধান্ত নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি মানবিক। একদিকে তিনি চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেন, অন্যদিকে সমস্ত দাবিদাওয়া মেনে নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাও করে দেন। যা এককথায় অনবদ্য। নবান্নে লাইভ কভারেজে বসে তিনি সিদ্ধান্ত নেন, একজন ব্যক্তিকে রাখা যিনি রোগীর পরিবার এবং চিকিৎসকদের মধ্যে সমন্বয় ও যোগাযোগ রাখবেন, পুলিসের পক্ষ থেকে নোডাল অফিসার ঠিক করে হাসপাতালগুলিতে পরিদর্শন করতে হবে, জেলার ক্ষেত্রে তা করবে জেলা পুলিস, গ্রিভান্স সেল তৈরি করে তা হাসপাতালের সামনে রাখা, তিনটি ভাষায় (বাংলা, ইংরেজি, হিন্দি) তা লিখিয়ে রাখতে হবে, সিনিয়র চিকিৎসকরা সরাসরি রোগীর পরিবারের সঙ্গে কথা বলুক, জেলায় জেলায় হোস্টেল তৈরি হবে, অ্যাপস তৈরি করে মতামত বিনিময় করা, সিনিয়র চিকিৎসকদের সঙ্গে জুনিয়র চিকিৎসকদের সঙ্গে বৈঠক করা হবে এবং হাসপাতালে অ্যালার্ম ব্যবস্থা রাখা হবে। ‌নজর রাখা হবে বেসরকারি হাসপাতালগুলিতেও। পাশাপাশি, চিকিৎসকদের সমস্ত পরামর্শই সানন্দে গ্রহণ করলেন মুখ্যমন্ত্রী।

এদিন নবান্নের চৌদ্দ তলায় শুরু হয় বৈঠক। হাজির ছিলেন মুখ্য সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, রাজ্য পুলিশের ডিজি, কলকাতার পুলিশ কমিশনার, স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য প্রমুখ। হাজির ছিলেন দুই সিনিয়র ডাক্তার সুকুমার মুখোপাধ্যায় এবং অভিজিৎ চৌধুরী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Optimized with PageSpeed Ninja